০৬:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আওলাদ মৃধা সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত, ভাইস চেয়ারম্যান সুমন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাহমিনা আক্তার তুহিন

   ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে  মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. আওলাদ হোসেন মৃধা।আনারস প্রতীক নিয়ে  আওলাদ মৃধা পেয়েছেন ৪৬ হাজার ১৯০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মইনুল হাসান নাহিদ মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ৪২ হাজার ১৮ ভোট

 

উপজেলাটির নতুন চেয়ারম্যান আওলাদ মৃধাকে ঘিরে আনন্দ-উৎসব করেছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। বুধবার (২৯ মে) তৃতীয় দফায় ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

 

এদিন ভোটার উপস্থিতি ছিল ৪৫.৯০ শতাংশ। এ নির্বাচনে ১ লাখ ১৮ হাজার ৭১২ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। তবে বাতিল হয়েছে ৪ হাজার ১৯০ ভোট। মোট ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৫৮ হাজার ৬৪৬। 
 
শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে ৯৬ কেন্দ্রেই। ভোটগ্রহণের পর শুরু হয় গণনা। কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোট গণনার পর প্রিজাইডিং অফিসাররা ফলাফল নিয়ে আসেন কন্ট্রোল রুম উপজেলা কমপ্লেক্স অডিটরিয়ামে। এরপর রাত সাড়ে ১০টার দিকে বেসরকারিভাবে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়।

এদিকে  ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন,

উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক মীর মোশারফ হোসেন সুমন। মাইক প্রতীকে তিনি ২৩ হাজার ৯০৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।

 
তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এ কে এম আবুল কাশেম চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ২৮৫ ভোট।

এছাড়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য এ এস এম শাহাদাত হোসেন উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩৭৬ ভোট। কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৪ হাজার ১০১৮ ভোট।
 
উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ওমর আলী তালা প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজর ৫৮৯ ভোট। উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মামুন হোসেন বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪৮৬ ভোট।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বাবুল পালকি প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ২৫৯ ভোট, উপজেলা যুবদলের  আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক রাসেল মুন্সী বই প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৯৭৫ ভোট।
উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য শেখ মনির হোসেন মিলন গ্যাস সিলিন্ডার প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ৩২৯ ভোট, আর উপজেলা যুবলীগ সদস্য আরাফাত শেখ রাসেল টিয়া পাখি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৪৭১ ভোট।মাইক প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মতো উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মীর মোশারফ হোসেন সুমন। তিনি তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা পরিষদের দুবারের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট এ কে এম আবুল কাশেম।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়ী হন,
উপজেলা পরিষদের বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাহমিনা আক্তার তুহিন পুনরায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

তুহিন ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৪০ হাজার ৬৯৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মিসেস আয়েশা আক্তার সেলাই মেশিন প্রতীকে পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৪২৪ ভোট। 
 
এছাড়া, আঁখি শাহীন হাঁস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৭ হাজার ৫৪০ ভোট, লুৎফর নাহার বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ৭৭২ ভোট এবং ফারহানা আক্তার লিজা পেয়েছেন ৬ হাজার ২০১ ভোট। এবার পাঁচ প্রার্থীই ভোটের মাঠে সরব ছিলেন।
Tag :
About Author Information

জনপ্রিয় সংবাদ

বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক “মহামায়া লেক” ভ্রমন গাইড

আওলাদ মৃধা সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত, ভাইস চেয়ারম্যান সুমন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাহমিনা আক্তার তুহিন

প্রকাশ: ০৪:০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪

   ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে  মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. আওলাদ হোসেন মৃধা।আনারস প্রতীক নিয়ে  আওলাদ মৃধা পেয়েছেন ৪৬ হাজার ১৯০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মইনুল হাসান নাহিদ মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ৪২ হাজার ১৮ ভোট

 

উপজেলাটির নতুন চেয়ারম্যান আওলাদ মৃধাকে ঘিরে আনন্দ-উৎসব করেছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। বুধবার (২৯ মে) তৃতীয় দফায় ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

 

এদিন ভোটার উপস্থিতি ছিল ৪৫.৯০ শতাংশ। এ নির্বাচনে ১ লাখ ১৮ হাজার ৭১২ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। তবে বাতিল হয়েছে ৪ হাজার ১৯০ ভোট। মোট ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৫৮ হাজার ৬৪৬। 
 
শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে ৯৬ কেন্দ্রেই। ভোটগ্রহণের পর শুরু হয় গণনা। কেন্দ্রে কেন্দ্রে ভোট গণনার পর প্রিজাইডিং অফিসাররা ফলাফল নিয়ে আসেন কন্ট্রোল রুম উপজেলা কমপ্লেক্স অডিটরিয়ামে। এরপর রাত সাড়ে ১০টার দিকে বেসরকারিভাবে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়।

এদিকে  ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন,

উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক মীর মোশারফ হোসেন সুমন। মাইক প্রতীকে তিনি ২৩ হাজার ৯০৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।

 
তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এ কে এম আবুল কাশেম চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ২৮৫ ভোট।

এছাড়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য এ এস এম শাহাদাত হোসেন উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩৭৬ ভোট। কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৪ হাজার ১০১৮ ভোট।
 
উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ওমর আলী তালা প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজর ৫৮৯ ভোট। উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মামুন হোসেন বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪৮৬ ভোট।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বাবুল পালকি প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ২৫৯ ভোট, উপজেলা যুবদলের  আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক রাসেল মুন্সী বই প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৯৭৫ ভোট।
উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য শেখ মনির হোসেন মিলন গ্যাস সিলিন্ডার প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ৩২৯ ভোট, আর উপজেলা যুবলীগ সদস্য আরাফাত শেখ রাসেল টিয়া পাখি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৪৭১ ভোট।মাইক প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মতো উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মীর মোশারফ হোসেন সুমন। তিনি তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা পরিষদের দুবারের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট এ কে এম আবুল কাশেম।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়ী হন,
উপজেলা পরিষদের বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাহমিনা আক্তার তুহিন পুনরায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

তুহিন ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৪০ হাজার ৬৯৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মিসেস আয়েশা আক্তার সেলাই মেশিন প্রতীকে পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৪২৪ ভোট। 
 
এছাড়া, আঁখি শাহীন হাঁস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৭ হাজার ৫৪০ ভোট, লুৎফর নাহার বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ৭৭২ ভোট এবং ফারহানা আক্তার লিজা পেয়েছেন ৬ হাজার ২০১ ভোট। এবার পাঁচ প্রার্থীই ভোটের মাঠে সরব ছিলেন।